কবিতাঃ মধ্যবিত্তের লকডাউন

মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান

স্কুল কলেজ খুলেনা আজ অফিস আদালত বন্ধ

মধ্যবিত্ত মানুষ মোরা মৃত্যু শহরে আবদ্ধ !

গার্মেন্টস শ্রমিক হচ্ছে ছাঁটাই শিক্ষক আজ রাজমিস্ত্রী!

পিপিই কি চিনেন না যে তিনিই দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী!

হ্যান্ড টু মাউথ চাকরি ছিল কারখানাটা বন্ধ হলো ধারদেনায় গলা

ডুবলো সুদের খাতায় নাম উঠলো।

ত্রাণের টাকা পকেট কেটে নেতার পকেট হলো ভারী।

তিনদিন ধরে না খাই আছি সরকার বলে মহামারী!

লকডাউন আর মহামারী প্লেটে তুলে খাওয়া যায়?

খেতে যদি নাইকো পারি ঘরে খাবার পাবো কোথায়?

তাই আজও কি ঘরে রবো?

অনাহারে,অর্ধাহারে?

মরলে মরবো করোনাতে বাঁচতে হবে খেয়ে পরে।

কর্ম যদি না করি ভাই সংসার আমার চলে কিসে??

আমি যদি কর্মে না যাই ঘর মরে যায় রোজ উপোসে।

হাসপাতালে ঘুরে ঘুরে অবহেলায় রোগী মরে,

সর্দি কাশি হলে পরে ছেলে ভাগে মাকে ফেলে।

অপর্যাপ্ত আইসিইউ -মাস্ক নেইতো অক্সিজেন সাপ্লাই,

আমি তুমি- কিছুই না ভাই,

চলো করি ২০০ টাকার করোনামুক্ত সার্টিফিকেট এপ্লাই।

ডাক্তার পুলিশ করোনাযোদ্ধা সেবায় দিচ্ছে প্রাণ ঢেলে,

মন্ত্রীরা আজ গলা ফাটিয়ে মিড়িয়াতে করোনা রুখে।

নেতা-মন্ত্রী,উকিল-ডাক্তার কেউ পাচ্ছে না রেহাই

কোথায় গেলো শক্তি সামর্থ্য? ক্ষমতা!

হিংসা-অহংকার? কোথায় গেলো বৈষম্য? ধর্ম-কর্ম,

মহাযজ্ঞে বেলা শেষে ফিরছো কোথা?

সাদা কাপড়, হাত শূন্যে?

প্রভু আমার মহাজ্ঞানী শিখিয়ে দিলো মানবতা আজ তোমরা বিপর্যস্ত,

চলছে দেখো প্রভুর খেলা।

অসুস্থ পৃথিবী সেরে উঠো আবার তুমি যদি সেরে যাও শোকর হাজার!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*